মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় ইউসিসি কোচিং সেন্টারের কুকীর্তি!

UCCবিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং ব্যবসার আড়ালে ডিজিটাল জালিয়াতি ও প্রশ্ন ফাঁস করে যাচ্ছে  ইউসিসি কোচিং সেন্টার (UCC)। ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের টাকার বিনিময়ে ভর্তি হওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এই কোচিং সেন্টারের কিছু শিক্ষক।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকও সিনেট অধিবেশনের দিন প্রশ্নপত্র ফাঁসের জন্য ইউসিসিকেই দায়ী করেন।

এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিট ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াত চক্রের মধ্যে যারা আটক হয়েছে তাদের মধ্যে সাদিয়া সুলতানা নামে একজন ভর্তিচ্ছু ইউসিসির এই কুকর্মের কথা প্রকাশ করেন। তার স্বীকারোক্তি ভিডিও চিত্রের মাধ্যমে সিনেট অধিবেশনে দেখানো হয়।  

সাদিয়া বলেন, আমি ইউসিসি কোচিং সেন্টারে কোচিং করেছি। ইউসিসির মাসুম নামের এক শিক্ষক আমাকে ৪ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ঢাবিতে ভর্তি করিয়ে দেয়ার নিশ্চয়তা দেন। সে অনুযায়ী তিনি আমাকে বিশেষ পদ্ধতিতে তৈরী মোবাইল ডিভাইস সম্পন্ন  একটি ডিজিটাল ক্যালকুলেটর দেন।

পরীক্ষা শুরু হওয়ার ১০ মিনিটের মধ্যে মোবাইলে ক্ষুদেবার্তার মাধ্যমে তিনি আমাকে ধারাবাহিকভাবে তিনটি সেটের প্রশ্নপত্রের উত্তর পাঠাতে থাকেন। আমি উত্তর দেখে ওএমআর পূরণ করার সময় কর্তব্যরত শিক্ষক দেখে ফেললে আমি আটক হই।

এছাড়া তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে ইউসিসিতে কোচিং করেনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকারী এমন শিক্ষার্থীকেও টাকার বিনিময়ে নিজেদের কোচিংয়ের নামে চালিয়ে দিয়েছেন।

জানা যায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের বাণিজ্য অনুষদভুক্ত ‘গ’ ইউনিট ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকারী রায়হান সোবহান প্যারাগন কোচিং সেন্টারে কোচিং করলেও ইউসিসি কর্তৃপক্ষ তাদের নামে চালিয়ে দেয়।

প্যারাগন বিশ্ববিদ্যালয় কোচিং সেন্টারের পরিচালক জাহিদ শীর্ষ নিউজকে জানান, রায়হান সোবহান আমাদের কোচিং থেকে কোচিং করেছে। কিন্তু ইউসিসি তাদের নামে প্রকাশ করছে।

তিনি বলেন, ইউসিসি এটার কোন প্রমাণ দেখাতে পারেনি। আমরা পত্রিকায় প্রকাশ করার পর সেই ছবি নিয়ে তারা পত্রিকায় প্রকাশ করেছে। আমরা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছি।

এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে ইউসিসি জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক।

গত শনিবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধূরী সিনেট ভবনে বার্ষিক সিনেট অধিবেশনে বিভিন্ন প্রমাণসহ তিনি এ অভিযোগ করেন।

ভিসি বলেন, ভর্তি পরীক্ষার জালিয়াতিতে ইউসিসি কোচিং সেন্টার জড়িত, আটককৃত শিক্ষার্থীরা পুলিশকে এ তথ্য জানিয়েছে।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি চলাকালে নয়টি কেন্দ্র থেকে ১৪ জনকে আটক করা হয়। তারা বিশেষ ক্যালকুলেটরের মাধ্যমে পরীক্ষার হলে জালিয়াতির চেষ্টা করে। আটককৃত শিক্ষার্থীরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ইউসিসি কোচিং সেন্টার নাম বলেছে। সিনেট অধিবেশনে তাদের জবানবন্দির ভিডিও চিত্রও দেখানো হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি হচ্ছে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ক্ষুণ হচ্ছে। এই জালিয়াতি রোধে আমরা সকল ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. এ এম আমজাদ আলী শীর্ষ নিউজকে বলেন, যারা প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। ইউসিসি কোচিং সেন্টার এর সাথে জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগে ইতোমধ্যে রাজধানীর শাহবাগ, নিউমার্কেটসহ ছয়টি থানায় ১৩টি মামলা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।