শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তারেকের বিরুদ্ধে রায় হলেই হরতাল

Tareqএবার নির্দলীয় সরকার বা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে হরতাল দিচ্ছে না বিএনপিসহ ১৮ দলীয় জোট। এবার তারা অর্থপাচার মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে সাজা হলে তা বাতিলের দাবিতে হরতাল দিতে পারে। তবে হরতাল আহবান করলে পাশপাশি নির্দলীয় সরকারের দাবিও ঝুলিয়ে দিতে পারে দলটি। এমনই কথা শোন যাচ্ছে বিভিন্ন মহলে। আজ অর্থপাচার মামলায় ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৩ এ রায় ঘোষণার কথা আছে। আইন অনুযায়ী দোষী প্রমাণ হলে তারেকের সর্বোচ্চ ৭ বছরের কারাদণ্ড এবং জরিমানা হতে পারে। অর্থপাচারের আরেক মামলায় তারেক রহমানের ছোটো ভাই আরাফাত রহমান কোকোর ৬ বছরের কারাদণ্ড হয়েছিল ২০১১ সালের জুনে। এরপর সিঙ্গাপুর থেকে কোকোর পাচার করা ২০ কোটি টাকারও বেশি দুই দফায় ফিরিয়ে এনেছে দুদক। সংবিধানের ৬৬ ধারার (১) দফায় (ঘ) উপদফায় বলা হয়েছেÑ কেউ নৈতিক স্খলনজনিত ফৌজদারি অপরাধে কারও দুবছরের সাজা হলে তিনি মুক্তি লাভের ৫ বছর পর্যন্ত নির্বাচনে অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। সূত্র জানায়, আজ আদালতে তারেক রহমান দোষী সাব্যস্ত হতে পারেন। দোষী সাব্যস্ত হলে তাকে আদালত সর্বোচ্চ সাজাই দিতে পারেন। রায় ঘোষণার পরপরই রাজধানীতে ব্যাপক তাণ্ডবে নামবে বিএনপিসহ তার অঙ্গ সংগঠন। সঙ্গে থাকবে জামায়াত-শিবির। তবে বিএনপি ও জামায়াতের একটি অংশ এ রায়ের পক্ষে অবস্থান নিলেও তার থাকবেন নিশ্চুপ। রায় তারেক রহমানের বিপক্ষে গেলে বিএনপিসহ ১৮ দল হরতাল, অবরোধের ডাক দেবে। এ থেকে অনুমান করা যায় চলতি সপ্তাহে তারা আরও একটি হরতাল কর্মসূচি দিচ্ছেন। তবে প্রথম দুদিন হরতাল এবং পরের একদিন রেলপথ, রাজপথ ও নৌপথ অবরোধের কর্মসূচি দিতে পারে বলে তাদের দলীয় লোকজন আলাপ-আলোচনা করছেন।

গোয়েন্দা সূত্রগুলো জানায়, সোমবার থেকে বুধবার পর্যন্ত আবারও হরতালের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বিএনপিসহ ১৮ দল। এবারের হরতালেও তারা ব্যাপক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটাবে। এবার ছাত্রদল ও যুবদলের কর্মীরা সক্রিয়ভাবে মাঠে নামানোর চেষ্টা করছেন দলের হাইকমান্ড। এ লক্ষ্যে হাইকমান্ড দেশের বিভিন্ন জেলা-থানাপর্যায়ের নেতা-কর্মীদেরও ইতোমধ্যে দিক নির্দেশনা দেওয়া শুরু করেছেন। তবে বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের মাঠপর্যায়ের নেতা-কর্মীদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। বিগত হরতালে হাইকামান্ড নেতা-কর্মীদের মাঠে না পেয়ে মাঠপর্যায়ের নেতা-কর্মীরা এখন হতাশ। তারা অনেকেই গ্রেপ্তারের ভয়ে নিজ নিজ এলাকা ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয়ে আছেন। আবার অনেকেই মানতে চান না হাইকমান্ডের নির্দেশ। কারণ দলের কোন কর্মী গ্রেপ্তার হলে হাইকমান্ডের কেউ তাদের কোন খোঁজ-খবর নেয় না। যে কারণে তারা এখন গা বাঁচিয়ে চলেন। তবে এদিক থেকে শিবির অনেক এগিয়ে। তারাই মূলত হরতালে মাঠে থাকেন। এবারও তারা সক্রিয়ভাবে মাঠে থেকে নাশকতা চালাবেন বলে জানা গেছে।

এদিকে, দুদকের আইনজীবী মোশারফ হোসেন কাজল জানান, অর্থ পাচার মামলায় দণ্ডিত হলে সর্বোচ্চ ৭ বছর কারাদণ্ডের বিধান আছে। সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবী জানান, এই মামলায় তারেক রহমানের এক বছরের কারাদণ্ড হলে তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। তারেক রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগÑ চারদলীয় জোট সরকারের আমলে তিনি টঙ্গীতে ৮০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রের কাজ পাইয়ে দিতে নির্মাণ কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেডের কাছ থেকে ২০ কোটি ৪১ লাখ ২৫ হাজার ৮৪৩ টাকা ঘুষ নেন। সিঙ্গাপুরে একটি ব্যাংকের মাধ্যমে এই টাকা লেনদেন হয়। ওই অবৈধ টাকার কিছু অংশ তারেক রহমান ভিসা কার্ডের মাধ্যমে খরচ করেছেন। এ কাজে তারেক রহমানের সহযোগী ছিলেন তার বন্ধু গিয়াসউদ্দিন আল মামুন।

২০০৯ সালের ২৬ অক্টোবর ক্যান্টনমেন্ট থানায় এই দুই জনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। ২০১০ সালের ৬ জুলাই তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। ২০১১ সালের ৮ আগস্ট তারেক রহমানকে পলাতক দেখিয়ে অভিযোগ গঠন করা হয়। গত বৃহস্পতিবার এই মামলায় যুক্তিতর্ক শেষ হয়। দুদক আশা করছে এ মামলায় তারা তারেক রহমান ও গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের বিরুদ্ধে যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণ উপস্থাপন করতে পেরেছেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আসম হান্নান শাহ অবশ্য আশঙ্কা করছেনÑ এ মামলায় তারেক রহমানকে সাজা দেবে আদালত। শুক্রবার রাজধানীতে এক আলোচনায় তিনি বলেন, ‘বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মামলার রায়ে কী আছে বা থাকতে পারে, তা জানা আছে। তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক রায় দেশের মানুষ মেনে নেবে না বলেও হুঁশিয়ারি দেন হান্নান শাহ্।

 

এ জাতীয় আরও খবর